April 20, 2021

আমাদের খবর

খবরের সাথে সব সময়


Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/customer/www/amaderkhabor.com/public_html/wp-content/themes/newsphere/lib/breadcrumb-trail/inc/breadcrumbs.php on line 254

বুবলী অপু বিশ্বাসের পথেই হাঁটছে

1 min read
বুবলী-অপু-বিশ্বাসের-পথেই-হাঁটছে

বুবলী অপু বিশ্বাসের পথেই হাঁটছে ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খানের সঙ্গে।

ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খানের সঙ্গে ৯টি সিনেমায় অভিনয় করে তারকা খ্যাতি পাওয়া শবনম বুবলি হঠাৎই সিনেপাড়া থেকে অদৃশ্য হয়েছেন।

বীর’ সিনেমার শুটিং শেষে দীর্ঘ সময় তাকে দেখা যাচ্ছে না। বুবলী এখন কোথায়? ঢালিউডপাড়া থেকে শুরু করে দেশের সিনেপ্রেমীদের মুখে এখন এই প্রশ্ন।

যদিও বুবলী নিজেই ঘোষণা দিয়েছিলেন, ‘বীর’ ও ‘ক্যাসিনো’ সিনেমার শুটিং শেষে লম্বা বিরতিতে যাবেন।

তবে কেন বিরতিতে যাচ্ছেন তা স্পষ্ট করেননি।

আর তার সেই ঘোষণার প্রেক্ষিতে গুঞ্জন ওঠে, শাকিব খানের সঙ্গে ঘর পেতেছেন বুবলী।

তিনি এখন সন্তানসম্ভাবা। সন্তান জন্মদানের উদ্দেশ্যেই বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন।

এজন্যই সিনেমা থেকে আপাতত ছুটি নিয়েছেন তিনি।

তবে এমন গুঞ্জনের সত্যতা মেলেনি এখনো।

এ গুঞ্জনের মধ্যেই গত ১৮ ফেব্রুয়ারি একটি বেসরকারি টেলিভিশন খবর প্রচার করে, অপু বিশ্বাসের পথে হাঁটছে বুবলী।

২৫ হাজার মার্কিন ডলার দিয়ে বুবলীকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠিয়েছেন শাকিব খান।

এদিকে ‘বীর’ সিনেমা মুক্তির আগে ঢাকা ক্লাবে আয়োজিত প্রেসমিটে আসেননি বুবলী।

এ ঘটনার পর ওই গুঞ্জনের রেশটা আরও প্রকোট হয়ে ওঠে।

এবার সেই গুঞ্জনের আগুনে ছাইচাপা দিলেন বুবলীর পরিবার।

বুবলীর পারিবারিক সূত্র জানায়, ইংল্যান্ড, আমেরিকা নয়, বর্তমানে ঢাকার উত্তরার নিজস্ব বাসভবনেই অবস্থান করছে বুবলী। ব্যক্তিগত কারণে মিডিয়ার ঘনিষ্ঠ কয়েকজনের সঙ্গে ছাড়া যোগাযোগ রাখছেন না এ নায়িকা। তাকে নিয়ে মুখরোচক গুঞ্জনের কোনোই সত্যতা নেই।

এরপরও গুঞ্জন থামার জো নেই।

কেননা কিছুদিন আগে এফডিসিতে বীর’ সিনেমার একটি আইটেম গানের শুটিংয়ে বুবলীর জন্য কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়। আইটেম গান হলেও স্বল্প পোশাকে দেখা যায়নি বুবলীকে। সেক্ষেত্রে সাবলীল পোশাকেই নেচেছেন তিনি।

কালো ফুল স্লিভ জামার সঙ্গে ওড়না দিয়ে শরীর ঢেকে অভিনয় করেছেন। আর প্রতিটি শট শেষ হলেই বুবলী দ্রুতই মেকআপ রুমে ঢুকে পড়েন। আর বাইরে থেকে সেই রুম তালা মেরে দেয়া হয়। বিষয়টি পাপারাজ্জিদের কাছে রহস্যজনক মনে হয়।