April 23, 2021

আমাদের খবর

খবরের সাথে সব সময়


Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/customer/www/amaderkhabor.com/public_html/wp-content/themes/newsphere/lib/breadcrumb-trail/inc/breadcrumbs.php on line 254

পাপিয়ার অর্থ পাচারের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এখন সিআইডির হাতে

1 min read
পাপিয়ার অর্থ পাচার

পাপিয়ার অর্থ পাচারের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এখন সিআইডির হাতে। বহিষ্কৃত যুব মহিলা লীগ নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়ার মানি লন্ডারিং নিয়ে ‘গুরুত্বপূর্ণ তথ্য’ পাওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। তবে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যটি কী, সে ব্যাপারে কোনো কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

বিভিন্ন সংস্থা থেকে আরও কিছু তথ্য আসছে।

পাপিয়া যা করেছেন সেগুলো অপরাধ উল্লেখ করে তিনি বলেন, মানি লন্ডারিংয়ের সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডিআইজি ইমতিয়াজ বলেন, অল্পদিনের মধ্যেই পাপিয়া দম্পতি বিপুল বিত্তবৈভবের মালিক হয়েছেন।

পাপিয়ার বিরুদ্ধে করা মানি লন্ডারিং মামলাটি অধিক গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

তবে নরসিংদী যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান সুমন সংশ্লিষ্টতা কতটুকু সে ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তদন্তকালীন বিষয়ে আমরা কিছু বলছি না।

নাম তদন্তের স্বার্থে বলা উচিত হবে না।

পাপিয়া-সুমন দম্পতি

পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, আটকের পর পাপিয়া-সুমন দম্পতির বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে তিনটি মামলা করেছে তার মধ্যে একটি মানি লন্ডারিং সংক্রান্ত।

সিআইডির সংশ্লিষ্ট শাখা মামলাটি তদন্ত করছে বলে তিনি জানান।

এর আগে পাপিয়া ও তার স্বামী সুমনের ব্যাংক হিসাবের তথ্য চেয়ে ব্যাংকগুলোকে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

চিঠিতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে তথ্য সরবরাহ করতে বলা হয়েছে।

গত ৩ মার্চ পাপিয়ার ব্যাংক হিসাবের তথ্য চেয়ে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইনটেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) পক্ষ থেকেও তফসিলি ব্যাংকগুলোকে চিঠি দেয়া হয়।

গত ২২ ফেব্রুয়ারি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হয়ে দেশত্যাগের সময় পাপিয়া ও তার স্বামীসহ চারজনকে আটক করে র‌্যাব-১।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে র‌্যাব সদস্যরা ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডে পাপিয়া-সুমনের বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে নগদ ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ, পাঁচটি পাসপোর্ট, তিনটি চেক বই, বিদেশি মুদ্রা ও বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি এটিএম কার্ড উদ্ধার করে।

এ সময় অবৈধ একটি বিদেশি পিস্তল এবং ২০ রাউন্ড গুলিও উদ্ধার করেন র‌্যাব সদস্যরা।

এ ব্যাপারে বিমানবন্দর ও শেরেবাংলা নগর থানায় তিনটি মামলা করে র‌্যাব।

বর্তমানে পাপিয়া ও তার স্বামী এবং তাদের দুই সহযোগী রিমান্ডে রয়েছে।

মানি লন্ডারিং আইনে করা মামলা তদন্ত করছে সিআইডি।