tag: করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা টিআইবি বাস্তবায়ন দেখতে চাই ।
Mon. Oct 26th, 2020

আমাদের খবর

খবরের সাথে সব সময়

করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা টিআইবি বাস্তবায়ন দেখতে চাই।

1 min read
করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা

করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা টিআইবি বাস্তবায়ন দেখতে চাই।

দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মতো বৈশ্বিক মহামারি ঠেকাতে সরকারের পরিচালিত কার্যক্রমে কোনো অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার যে ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

তার কঠোর ও নির্মোহ প্রয়োগের আহ্বান জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

এ ধরনের সংকট মোকাবিলায় সফল হতে হলে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা ও কার্যকর দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণের কোনো বিকল্প নেই।

আজ গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সংস্থাটি এ সব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারিতে তারই প্রতিফলন ঘটেছে।

টিআইবি বলছেন, এই ঘোষণার বাস্তবায়নের মূল দায়িত্ব এখন সকল পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতা-কর্মী-সুবিধাভোগী, প্রশাসন, পুলিশসহ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার হাতে।

super banner

অন্যদিকে জরুরি প্রয়োজনে ত্বরান্বিত করার বাধ্যবাধকতা সত্ত্বেও ক্রয়খাতে জবাবদিহিতা প্রয়োজন।

খাদ্য ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহে গতিশীলতা নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়েছে টিআইবি।

করোনা ভাইরাস-উদ্ভূত জাতীয় দুর্যোগ বিষয়ে ২৮শে মার্চ গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিবৃতির প্রেক্ষিতে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে এমন ঘোষণাই প্রত্যাশিত ছিলো উল্লেখ করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সুদৃঢ় অবস্থান যেমন আশাব্যঞ্জক, তেমনি এর কার্যকর বাস্তবায়নের দায়িত্ব তার দলের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মী, সমর্থক ও সুবিধাভোগীর ওপর। তাদের প্রতি এখন দেশবাসীর প্রত্যাশা, এই ঘোষণার প্রতি তারা শুধু শ্রদ্ধাশীল থাকবেন তা-ই নয়, বরং এই মহাদুর্যোগের সুযোগ নিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার থেকে দূরে থেকে তারা সকল প্রকার অনিয়ম-দুর্নীতি, আত্মসাৎ, অপচয় এবং রাজনৈতিক সুবিধা অর্জনের অপচর্চাকে সক্রিয়ভাবে প্রতিহত করবেন।

করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা

মাদারিপুরের শিবচর, হবিগঞ্জের বাহুবল ও ভোলায় সরকারি সহায়তার চাল ও ভোজ্য তেল নিয়ে অনিয়মের ক্ষেত্রে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপের যে দৃষ্টান্ত সংবাদমাধ্যমে এসেছে তা উল্লেখ করে ড. জামান বলেন, জড়িতরা শাসক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ততা বা অন্যভাবে প্রভাবশালী হবার পরও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক ও পুলিশ সদস্য যেভাবে কঠোর অবস্থান নিতে পেরেছেন তাতে আমরা স্বস্তি পেয়েছি। কিন্তু এর ঠিক বিপরীতে অভিযোগ উঠেছে, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ‘দোকান খোলা রাখার’ অভিযোগে ব্যবস্থা নেয়ার নাম করে ক্যাশবাক্স থেকে টাকা নেয়ার সময় হাতে-নাতে ধরা পড়েছেন পুলিশ বাহিনীর সদস্য। আমরা সীতাকুণ্ডের ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন হিসেবেই দেখতে চাই এবং আশা করতে চাই শিবচর, ভোলা ও বাহুবলের দৃষ্টান্ত সকল প্রশাসনিক ও সেনাসদস্যসহ আইনপ্রয়োগে নিয়োজিতদের জন্য মডেল হবে। কোনো ব্যত্যয় হলে সরকার ও প্রশাসন পরিচয় ও অবস্থান নির্বিশেষে কঠোরভাবে প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা নিবেন।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, বাংলাদেশে সুশাসনের ঘাটতি এবং বিশেষ করে প্রশাসন ও আইনপ্রয়োগে নিয়োজিত সংস্থার দুর্নীতি-প্রবণতা সর্বজন বিদিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *