tag: অন্য এক সালমা করোনা পরিস্থিতিতে।ক্লোপআপ ওয়ান চ্যাম্পিয়নআমাদের খবর
Sun. Oct 25th, 2020

আমাদের খবর

খবরের সাথে সব সময়

অন্য এক সালমা করোনা পরিস্থিতিতে।

1 min read
অন্য এক সালমা করোনা পরিস্থিতিতে

অন্য এক সালমা করোনা পরিস্থিতিতে। সম্প্রতিকালের জনপ্রিয় ফোক সংগীত শিল্পী মৌসুমী আক্তার সালমা। ক্লোপআপ ওয়ান প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর থেকেই নিয়মিত গান করে যাচ্ছেন। শ্রোতাদের উপহার দিয়েছেন বেশ কিছু জনপ্রিয় গান। অন্য এক সালমা করোনা পরিস্থিতিতে।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে সর্বশেষ এ শিল্পীর ‘তোমার অপেক্ষায় – শিরোনামের গান প্রকাশ হয়।

এর সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন হাবিব ওয়াহিদ।

এর মাধ্যমে হাবিব ওয়াহিদের সঙ্গে প্রথমবারের মতো কাজ করেন মৌসুমী আক্তার সালমা। তারপর আরও কয়েকটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন সালমা।

এরমধ্যে তিনি কণ্ঠ দিয়েছেন প্রয়াত বাউল গান সম্রাট শাহ আবদুল করিমের একটি গানে।

গানটির শিরোনাম- ‘আমার বাড়ি আইলানা ক্যানে। এই গানটিতে সালমার সঙ্গে যৌথভাবে কণ্ঠ দিয়েছেন চৌধুরী কামাল।

নতুন করে গানটির সংগীত প্রযোজনা করেন বাপ্পা মজুমদার

এই গানের রেকর্ডিং করা হয় চলতি বসরের ফেব্রয়ারিতে।

এর বাইরে নতুন আরও একটি গান করেন মৌসুমী আক্তার সালমা।

গানটির শিরোনাম ‘শ্যাম পিরিতি। শাহনেওয়াজের কথা ও সুরে এই গানের সংগীত প্রযোজনা করেন এম আর আশিক।

সালমা বলেন, বেশ কয়েকটি গান আমার করা আছে। সেগুলো সামনে প্রকাশ করা হবে। এরইমধ্যে ভিডিওর কাজ শুরু করেছি।

নতুন গানের প্রস্তাবও এসেছে আমার কাছে। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে গানগুলোতে কণ্ঠ দেওয়া শুরু করব। আশা করছি ভালো লাগবে গানগুলো দর্শক শ্রোতাদের।

এদিকে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির শুরু থেকেই মানুষের পাশে নিজের ‘সাফিয়া ফাউন্ডেশন’-এর মাধ্যমে দাঁড়িয়েছেন মৌসুমী আক্তার সালমা।

কয়েক হাজার পরিবারকে সহায়তা করেছেন এর মাধ্যমে। মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য গেল ঈদে গানও প্রকাশ করেননি তিনি।

নিজের ফাউন্ডেশনকেই সময় দিয়েছেন। এমন খারাপ সময়ে অন্য এক মানবিক সালমাকেই আবিষ্কার করা গেছে।

দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের কাছে তিনি পৌঁছে গেছেন তার সহযোগিতা নিয়ে। এ

খনও এই সহযোগিতা অব্যাহত রয়েছে। এ বিষয়ে সালমা বলেন, মানুষ আমার গান ভালো বেসেছে। সে কারণেই আমি আজকের সালমা হতে পেরেছি।

সাফিয়া ফাউন্ডেশন

তাদের জন্যই ‘সাফিয়া ফাউন্ডেশন’-এর মাধ্যমে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছি। কয়েক হাজার মানুষকে এই করোনার সময়ের প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী দিতে পেরেছি। এই ব্যস্ততার ভিড়ে নতুন গান করতে পারিনি। আমি প্রথম থেকেই মানুষের জন্য কিছু একটা করার চেষ্টা করেছি।

ব্যাক্তিগত ভাবে অনেক কিছু করা হয়েছে। তবে পরে মনে হলো আমি যদি কাজটি ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে করি অনেক মানুষকে সহযোগিতা করতে পারবো। একদিন হয়তো আমি থাকবো না। কিন্তু আমার ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে অসহায় মানুষ সাহায্য পাবেন। এসব ভাবনা থেকেই কাজটি করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *